24 C
Kolkata
Tuesday, March 21, 2023
More

    ওড়ানো যাবেনা জেনেই একসুতোয় দুটো ঘুড়ি ওড়াতে গেলেন নীতীশ – দেবারুণ রায়

    বিজেপিকে দাসখত্ লিখে দিলেন নীতীশকুমার। তাঁকে ১৫ বছরের মধ্যে ১৩ বছর মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ার দিয়েছে বিজেপির বকলমে বিহারের ভূমিহারদের নেতৃত্বে ব্রাহ্মণ, রাজপুত কায়স্থ। কুর্মীর মতো অনগ্রসর জাতির কাউকে মুখ্যমন্ত্রীর কুর্সি ছেড়ে দিয়েছেন শুধু কাঁটা দিয়ে কাঁটা তোলার কৌশলে। কিন্তু জাতের বালাই ছেড়ে থাকতে আর নারাজ তথাকথিত উঁচুজাতের কত্তারা। এই ভোটেই ওরা টহলদারের আর পাহাড়াদারের পাশা পাল্টে দেবার সৌগন্ধ খেয়েছেন। ভূমিহারদের আকছার বলতে শোনা গেছে, “বাভন” কখনও নীতীশের কাছে কিছু চাইবে না। আর চেয়ে লাভ কী?  ও তো “আরক্ষণ দেবে দলিত আর পিছড়েদের।

    আসলে  নীতীশবাবু উচ্চবর্ণকে এই লম্বা অসময়ে সত্তাসুখ ভোগ করার চাবি জুগিয়েছেন। চাক্ষুষ পিছড়েকে যা দিয়েছেন তা তার চেয়ে অনেক দামি। ভারতের রাজনীতির কর্তৃত্ব দিতে যারা বিজেপিকে প্রোমোট করেছেন তাঁদের অন্যতম হলেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী। যিনি রাজনীতির যূপকাষ্ঠে উৎসর্গ করেছেন পারিবারিক সুখ স্বাচ্ছন্দ্য, কার্যত কাছের মানুষদের সান্নিধ্য। সেক্ষেত্রে ১৫বছরের মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার সাফল্যের রঙ নিজের কাছেই ফিকে হয়ে যায়। 
    যখন তিনি দেখেন, যে মতাদর্শের ফেরিওয়ালা হয়ে তিনি পথে নেমেছিলেন তার অর্জন ও সঞ্চয়ের ঘর শূন্য।

    লোহিয়া, জয়প্রকাশ বা ভিপি সবার  ব্যাটনগুলোই হারিয়ে ফেলেছেন। হাতে শুধু পেনসিলের মতোই ঠেকেছে দীনদয়ালের দর্শন। যা তাঁর রাজনৈতিক কেরিয়ারের মূলের সঙ্গে মেলেনা। গান্ধীবাদী রাজনীতি অর্থনীতির ঝান্ডা হাতে ইঞ্জিনিয়ারের পেশা হেলায় বর্জন করেছিলেন রাজনীতির জীবনের প্রথম সকালে। আর আজ সন্ধ্যার আলো আঁধারিতে এসে তিনি তাঁর বিবেকের বিপরীতে সমান্তরাল শিবিরের নেতা হিসেবে মুখ দেখছেন আয়নায়। এখন পরিবেশ পরিস্থিতির বিচারেও তিনি স্বচ্ছন্দ। দেখতে পাচ্ছেন স্পষ্টতই সময় তাঁর হাতের পাঁচ আঙুলের ফাঁক দিয়ে গলে যাচ্ছে। তাকে আটকানোর ক্ষমতা তাঁর নেই। আবার সুভদ্র মানুষ বলে সৌজন্য মেনে এনডিএর নেতা বিজেপির ঋণটুকুও মিটিয়ে দিতে চান। বলেন, “ইয়ে মেরা আখরি চুনাও। কল হ্যায় ইস চুনাও কা আখরি দিন। ঔর মেরা ভি আখরি চুনাও।” সঙ্গে সঙ্গেই লুজ বল ব্যাটে লুফে নেন তেজস্বী যাদব, একেবারে ওভার বাউন্ডারি। ” আমরা বলেছিলাম, আপনি সব ফ্রন্টে ব্যর্থ, রণক্লান্ত। এবার বিশ্রাম করুন। এতদিনে বুঝলেন।”

    সত্যিই দান ছেড়ে দিলেন নীতীশকুমার। যখন তাঁর টপ ফর্মে থাকার কথা। জীবনের সেই এভারেস্টে পৌঁছেছেন। এবং সমতলেও তাঁর সামনে ফাঁকা মাঠই থাকার কথা ছিল। কারণ “জমিনি হকিকৎ” হল, তাঁর চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুজনই মাঠে নেই। লালু জেলে এবং রামবিলাস প্রয়াত। তাঁকে টেক্কা দেবে কে ? কিন্তু  মুখ্যমন্ত্রী তিনি। প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণ জানেন। সুতরাং কেন্দ্র ও রাজ্যের গোপন গোয়েন্দা রিপোর্ট তাঁর অজানা নয়। মঙ্গলবার পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে এমন আম আদমি তিনি নন। সুতরাং এক সুতোয় দুটি ঘুড়ি ওড়ালেন। শেষ ভোটে জনতার সহানুভূতি যদি তাঁর পারানির কাজে লাগে, তিনি পার করে দিয়েই হাল ছাড়বেন বিজেপির হাতে। সেটাই তাঁর পরম কর্তব্য।

    এমন রূপান্তরের সুযোগ এলে কোন ভূমিহার বা উচ্চ বর্ণের মুখ্যমন্ত্রী হবেন। বিজেপির প্রতি এই পরম কর্তব্যের খাতিরেই দ্বিতীয় দফায় তিনি মোদির বিহার “নাও”এর মাল্লা। কারণ জোট সরকারের মুখ্যমন্ত্রী হবে বন্ধু দল থেকে, এই আডবাণীর বন্ধুসূত্র খারিজ হয়েছে মোদিযুগে। মহারাষ্ট্র তার উদাহরণ। এখন কংগ্রেস মুক্ত ভারতে কংগ্রেস উক্ত পথ। অবশ্যই শুধু ক্ষমতার বিস্তারে। আর যদি নীতীশবাবুর ঘুড়ি উড়ি উড়ি করেও শেষে না ওড়ে, এবং পছিয়া হাওয়ায় পরিবর্তনের ঋতু তেজস্বীর তেজী কেশর ছুঁয়ে দিয়ে যায়, তাহলেও “ছট পরবে” সূর্যাস্তের আভায় উজ্জ্বল হবে তাঁর মতো নাস্তিকের মুখ। একটা না একটা ঘুড়ি উড়বেই। আর আটা কলে গমের সঙ্গে ঘূনপোকা তো পিষেই যায়। নিদারুণ অনভিজ্ঞতা চিরাগ পাসোয়ানকে সেই রাস্তায় নিয়েছে। চিরাগের অন্ধের মতো হস্তিদর্শন অবশ্যই বিজেপির রণনীতি বুঝতে সাহায্য করেছে সবাইকে। নীতীশ বুঝেছেন, তাঁর পায়ের নীচে মঞ্চ নেই, মাথার ওপরেও নেই শামিয়ানা।

    Related Posts

    Comments

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    সেরা পছন্দ

    সরে গেল ‘এটিকে’ , পরের মরশুমে ঝড় তুলতে আসছে ‘মোহনবাগান সুপার জায়ান্টস’

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পরে বড় ঘোষণা করলেন সঞ্জীব গোয়েঙ্কা। মোহনবাগানের নামের শুরু থেকে সরে গেল...

    ভারতসেরা ‘মোহনবাগান’ ! বাঙালির গর্বের দিন

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : চাপ বনাম পাল্টা চাপ। পেনাল্টি বনাম পাল্টা পেনাল্টি। অফুরান দৌড় আর স্কিলের ফুলঝুরি দেখাতে...

    ISL চ্যাম্পিয়ন এটিকে মোহনবাগান

    দ্য ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : আই এস এল ফাইনালে রুদ্ধশ্বাস জয় ছিনিয়ে নিলো এটিকে মোহনবাগান । বেঙ্গালুরু এফসিকে টাইব্রেকারে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হলো...

    বাড়িতে আনুন বেশকিছু হোমিওপ্যাথি ঔষধ , পাবেন বহু সমস্যা মুক্তি

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : হোমিওপ্যাথি এক পুরনো চিকিৎসা পদ্ধতি। আয়ুর্বেদের সঙ্গেও এই চিকিৎসা পদ্ধতির বেশ কিছু মিল...

    বড় বড় মার্কিন ব্যাংকের পতন ! আসছে মহামন্দা ?

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : সিলিকন ভ্যালি ব্যাঙ্ক এবং সিগনেচার ব্যাঙ্ক – পর পর দুই বড় মাপের মার্কিন ব্যাঙ্কের...