16 C
Kolkata
Monday, January 17, 2022
More

    জাতীয় শিক্ষা নীতি নিয়ে ভার্চুয়াল সম্মেলনে ‘শিক্ষা কী বাত’ জানালেন প্রধানমন্ত্রী

    দ্যা ক্যালকাটামিরর ব্যুরো: শুক্রবার সকাল ১১ টা থেকে ইউজিসি ও শিক্ষামন্ত্রকের ফেসবুক এবং টুইটার হ্যান্ডলের মাধ্যমে সরাসরি সম্প্রচারিত হোলো প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ভাষণ। আজ ‘জাতীয় শিক্ষানীতিতে উচ্চ শিক্ষায় রূপান্তরমূলক পুনর্গঠন’ নিয়ে তিনি বক্তব্য পেশ করেন। বক্তব্যের প্রথমেই শিক্ষানীতি নিয়ে দেশ জুড়ে যে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে, তিনি তাকে স্বাগত জানিয়েছেন।

    বক্তব্যের শুরুতেই দেশের সকল উপাচার্যদের উদ্দেশে বলেন- ‘ দেশের নতুন শিক্ষানীতি গোটা দেশ জুড়ে একটি ‘স্বাস্থ্যকর বিতর্কের’ জন্ম দিয়েছে। আমি মনে করি আমরা যত বেশি আলোচনা করব এবং তর্ক করব ততই আমাদের এই শিক্ষানীতির গভীরে প্রবেশ করে তাকে জানতে ও বুঝতে সুবিধা হবে। আর এতে লাভবান হবে শিক্ষা বিভাগ। সেই সাথে সাথে তিনি এও বলেন যে তবে অবশ্যই, এই পরিকল্পনা কীভাবে কার্যকর করা হবে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠবেই। কিন্তু সেই প্রশ্নের উত্তরে আমরা সবাই মিলে এই শিক্ষানীতির বাস্তবায়ন করব। কারণ আপনারা প্রত্যেকেই এই নতুন শিক্ষানীতির বাস্তবায়নে সরাসরি জড়িত রয়েছেন। তাই সরকারের পাশাপাশি আপনাদের দায়িত্ব অনেক’।

    এই ভার্চুয়াল সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সহ কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রী রমেশ পোখরিয়াল নিশঙ্ক ও ইসরোর প্রাক্তন প্রধান কাস্তুরিরঞ্জন। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ৩৪ বছর পর ভারতের ‘শিক্ষা সংস্কার’ ও ‘নতুন শিক্ষানীতি’ গঠনের নেপথ্যে থাকা কমিটিকে নেতৃত্ব দিয়েছেন এই প্রাক্তন ইসরো প্রধান।

    ‘জাতীয় শিক্ষানীতিতে উচ্চ শিক্ষায় রূপান্তরমূলক পুনর্গঠন’ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ

    এদিন প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন যে- ‘নয়া শিক্ষনীতি, ভারতকে শক্তিশালী, আত্মনির্ভর, উপযুক্ত করে তোলার জন্যে একুশ শতকের বিশ্বভাবনার ভিত্তিতে তৈরি করা হয়েছে । আগামীদিনে প্রথাগত নয় বরং বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে লেখাপড়া করা হবে। তিন-চার বছর ধরে পরীক্ষমূলক সমীক্ষা চালিয়ে তার ফলাফল কে অনুসরণ করে এই শিক্ষানীতি তৈরি করা হয়েছে। ভারতীয় পড়ুয়াদের ডাক্তার-ইঞ্জিনিয়ারের দৌড় থেকে সরিয়ে আনতে হবে ‘।

    উচ্চশিক্ষার সংস্কার নিয়ে বক্তব্য পেশ করার সময় এপিজে আব্দুল কালাম ও রবীন্দ্রনাথকে স্মরণ করেন মোদী। তিনি এই সকল মনীষীদের উক্তি টেনে বলেন- “প্রতিভা ও প্রযুক্তির মেলবন্ধনের চেষ্টা করা হয়েছে নয়া শিক্ষানীতিতে। শিক্ষকদের প্রশিক্ষনের ওপরে জোড় দেওয়া হয়েছে। যাতে শিক্ষকরা নিজেদেরকে সময়ের সাথে সাথে ক্রম পর্যায়ে আপডেট করতে পারে। এই নতুন শিক্ষানীতি দিশা দেখাবে ২১ শতককে’।

    তিনি আরও বলেছেন নয়া রাষ্ট্রীয় শিক্ষানীতিতে শ্রমিক, চাষীদের পরিশ্রম সম্পর্কে জ্ঞান বৃদ্ধি করা হবে। তাদের কাজকে সামনে থেকে দেখার সুযোগ দেওয়া হবে। এছাড়াও তিনি বলেন, ‘প্রয়োজন অনুসারে মাঝপথে পড়াশোনা থামিয়ে দেওয়ার সুবিধা থাকছে। প্রয়োজনে তারা পরবর্তীকালে আবার শুরু করতে পারবে লেখাপড়া। চাকরির প্রয়োজন অনুসারে পড়তে পারবেন শিক্ষার্থীরা’।

    Related Posts

    Comments

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    সেরা পছন্দ

    অনেকদিন পর রাজ্যে কমল করোনা সংক্রমন , উদ্বেগের কারণ কলকাতা

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : গত কয়েকদিন পর সামান্য কমল করোনা সংক্রমণ। কমল মৃত্যুর সংখ্যাও। গত তিনদিন ধরে বাংলায়...

    প্রয়াত নাট্যজগতের অন্যতম বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব শাঁওলি মিত্র !

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : প্রয়াত বাংলার অন্যতম বিখ্যাত নাট্যকার শাঁওলি মিত্র। আজ দুপুর তিনটের সময় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ...

    দীর্ঘদিন স্কুল কলেজ বন্ধ রাখার প্রয়োজন নেই , বললেন বিশ্ব ব্যাংকের কর্তা

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : করোনা থেকে শিশুদের রক্ষা করতে দীর্ঘ এক বছরেরও বেশি সময় ধরে বন্ধ স্কুল, কলেজ...

    ওমিক্রনের উপসর্গের সাথে অন্য ভ্যারিয়েন্টের পার্থক্য কি ? দেখুন কি বলছে বিশেষজ্ঞরা

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : ওমিক্রনের ফলে দ্রুত সংক্রমণ ছড়াচ্ছে বলে মত বিশেষজ্ঞদের। ওমিক্রনে সংক্রমণ দ্রুত ছড়াচ্ছে বটে। কিন্তু...

    আর ৭ দিন নয় , এবার ৫ দিন হতে পারে হোম আইসোলেশনের মেয়াদ !

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : আর ৭ দিন নয়, এবার থেকে করোনায় আক্রান্ত হলে ৫ দিন হোম আইসোলেশনে থাকলে...