28 C
Kolkata
Sunday, June 26, 2022
More

    রাফাল নির্মাতারা অফসেট সরবরাহ করেনি আর কোনো প্রযুক্তিও স্থানান্তর হয়নি: CAG

    দ্য ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো: সংসদে সিএজি বলেছে: “ডিআরডিও লাইট কমব্যাট এয়ারক্রাফটের জন্য ইঞ্জিনের (কাবেরী) আদি উন্নয়নের জন্য প্রযুক্তিগত সহায়তা পেতে চেয়েছিল যা এখনও পর্যন্ত, বিক্রেতা ড্যাসল্ট এভিয়েশন এই প্রযুক্তি স্থানান্তরের বিষয়টি নিশ্চিত করেনি।

    প্রতিরক্ষা ক্রয়ের জন্য সরকারের অফসেট নীতির উপর ব্যাপকভাবে জোর দিয়ে জাতীয় নিরীক্ষক (CAG) ড্যাসল্ট এভিয়েশন থেকে কেনা ৩৬টি রাফাল ফাইটার জেটের উদাহরণ তুলে ধরেন এবং বলেন যে এই ফরাসি বিমান নির্মাতা প্রযুক্তি হস্তান্তরের ব্যাপারে তার প্রতিশ্রুতি পূরণ করেনি।

    বুধবার সংসদে তার সাম্প্রতিক প্রতিবেদন পেশ করার পর বুধবার জারি করা এক বিবৃতিতে কম্পট্রোলার অ্যান্ড অডিটর জেনারেল (সিএজি) বলেছেন: “… দেখা গিয়েছে যে বিদেশী বিক্রেতারা প্রধান সরবরাহ চুক্তির জন্য যোগ্যতা অর্জনের জন্য বিভিন্ন অফসেট প্রতিশ্রুতি প্রদান করেছে, কিন্তু পরে তারা এই প্রতিশ্রুতি পূরণে আন্তরিক ছিল না।

    এই প্রসঙ্গে রাফাল চুক্তির কথা উল্লেখ করে সিএজি বলেছে: “উদাহরণস্বরূপ, ৩৬টি মাঝারি মাল্টি রোল কমব্যাট এয়ারক্রাফট (এমএমআরসিএ) সম্পর্কিত অফসেট চুক্তিতে, বিক্রেতা মেসার্স ড্যাসল্ট এভিয়েশন এবং মেসার্স এমবিডিএ প্রাথমিকভাবে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ (সেপ্টেম্বর ২০১৫)

    ভারতের আকাশে রাফালে

    সিএজি-র বিবৃতিতে ভারতের তরফে অনিল আম্বানির নেতৃত্বাধীন রিলায়েন্স ফার্মের জড়িত থাকার কারণে ২০১৯ সালের সাধারণ নির্বাচনের আগে রাজনৈতিক ঝড়ের কেন্দ্রে থাকা ৫০ শতাংশ অফসেট ক্লজের কোন মূল্যায়নের কথা উল্লেখ করা হয়নি।

    গত ২২ আগস্ট সিএজি রাফাল অফসেট চুক্তির অডিট বাতিল করে দেওয়ার একটি রিপোর্টের ভিত্তিতে কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী টুইট করেছিলেন: “রাফালে ভারতীয় কোষাগার থেকে টাকা চুরি করেছে।

    যদিও সূত্রের খবর এই বিষয়ে ড্যাসল্ট এভিয়েশনের একজন ভারতীয় প্রতিনিধির সাথে সিএজি’র বিবৃতি সম্পর্কে যোগাযোগ করা হলে সেখান থেকে কোন মন্তব্য পাওয়া যায় নি। সিএজি তার বিবৃতিতে বলেছে যে ২০০৫ থেকে মার্চ ২০১৮ পর্যন্ত বিদেশী বিক্রেতাদের সাথে মোট ৬৬,৪২৭ কোটি টাকার ৪৬টি অফসেট চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।

    সিএজি উল্লেখ করেছে “এই চুক্তির অধীনে ২০১৮ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে বিক্রেতাদের ১৯,২২৩ কোটি টাকার অফসেট ছেড়ে দেওয়া উচিত ছিল। যাইহোক, তাদের দ্বারা অফসেট অব্যাহতির দাবি মাত্র ১১,৩৯৬ কোটি টাকা, যা প্রতিশ্রুতির মাত্র ৫৯ শতাংশ ছিল। উপরন্তু, বিক্রেতাদের জমা দেওয়া এই অফসেট দাবির মাত্র ৪৮ শতাংশ (৫,৪৫৭ কোটি টাকা) মন্ত্রণালয় কর্তৃক গৃহীত হয়েছে,” ।

    ২০০৫ সালে ভারত সরকারের গৃহীত অফসেট নীতি আমদানির মাধ্যমে ৩০০ কোটি টাকার উপরে সকল মূলধন প্রতিরক্ষা ক্রয়ের জন্য প্রস্তাবনা হয়। বিদেশী বিক্রেতা, বা মূল সরঞ্জাম প্রস্তুতকারক (OEM) ভারতের প্রতিরক্ষা বা এরোস্পেস সেক্টরে ক্রয়ের মূল্যের অন্তত ৩০ শতাংশ বিনিয়োগ করতে হয়।

    ওইএম (OEM) এর অফসেট বাধ্যবাধকতা পূরণের বেশ কয়েকটি উপায় আছে, যার মধ্যে রয়েছে প্রত্যক্ষ বিদেশী বিনিয়োগ (এফডিআই), ভারতীয় সংস্থাগুলিকে বিনামূল্যে প্রযুক্তি হস্তান্তর, এবং ভারতীয় কোম্পানিদ্বারা উৎপাদিত যোগ্য পণ্য ক্রয়। এই বাধ্যবাধকতা গুলি পূরণ করতে, OEMS ভারতীয় সংস্থাগুলিকে অংশীদার হিসেবে নির্বাচন করতে হবে।

    যাইহোক, সিএজি উল্লেখ করেছে যে প্রযুক্তি স্থানান্তরের বিষয়ে একটি বিশেষ ব্যর্থতা দেখা গিয়েছে। এতে বলা হয়েছে, “বিক্রেতাদের বিনিয়োগের ৯০ শতাংশ ভারতীয় শিল্প থেকে সরাসরি পণ্য ও সেবা ক্রয়ের আকারে ছিল”। এছাড়া ওই অফসেটের মোট মূল্যের মাত্র ৩.৫ শতাংশ এফডিআই-এর মাধ্যমে অব্যাহতি দেয়ার চুক্তি করা হয়েছে।

    সিএজি বলেছে, “একটি মামলাও খুঁজে পাওয়া যায়নি যেখানে বিদেশী বিক্রেতা ভারতীয় শিল্পে উচ্চ প্রযুক্তি হস্তান্তর করেছে”। এতে বলা হয়েছে, “ভারতের ৬৩টি সেক্টরের মধ্যে প্রতিরক্ষা খাত এফডির দিক থেকে ৬২ তম স্থানে রয়েছে এবং বিদেশী বিক্রেতা ভারতীয় শিল্পে ‘ধরণের’ সরঞ্জাম সরবরাহ করেছে।

    সিএজি বলেছে, “এইভাবে, অফসেট নীতির উদ্দেশ্য অনেকাংশে অর্জিত হয়নি, এমনকি এক দশকেরও বেশি সময় ধরে দত্তক নেওয়ার পরেও,” সিএজি আরও বলেছে যে “(প্রতিরক্ষা) মন্ত্রণালয়কে নীতি এবং এর বাস্তবায়ন পর্যালোচনা করতে হবে”।

    কম্পট্রোলার অ্যান্ড অডিটর জেনারেলের (সিএজি) এই ফলাফল রাফাল ফাইটার জেট চুক্তিতে প্রযুক্তি হস্তান্তর নিয়ে সরকারের আশ্বাসকে প্রশ্নচিহ্নের মুখে ফেলে দিয়েছে। সেই সময়ে, যখন প্রতিরক্ষা ক্রয় চুক্তিতে অফসেটের বিধান অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিপুনরুজ্জীবিত করার জন্য একটি ইঞ্জিন হিসেবে দেখানো হয়।

    Related Posts

    Comments

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    সেরা পছন্দ

    আগামী সোমবার খুলে যাচ্ছে রাজ্যের সব স্কুল

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : আগামী ২৭ জুন থেকে খুলে যাচ্ছে রাজ্যের সমস্ত সরকারি স্কুল। রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু...

    পুজোর বাকি ১০০ দিন ! অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় বাঙালি

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : পুজোর বাকি ১০০ দিন। এখন থেকেই পুজোর প্ল্যানিং ? এখনও ঢের বাকি ! না,...

    দুর্বল মৌসুমী বায়ু ! অনিশ্চিত বর্ষা

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : মৌসুমি বায়ু ঢুকলেও দক্ষিণবঙ্গে দুর্বল হয়ে পড়ল। আগামী কয়েকদিন বিশেষ বৃষ্টির সম্ভাবনা দেখছেন না...

    আরেকটা করোনা বিস্ফোরণের মুখে দাঁড়িয়ে রাজ্য ?

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : রাজ্যে ভয়াবহ আকার নিল করোনা। এক লাফে ৭০০ পার করল দৈনিক সংক্রমণ। বৃহস্পতিবার দৈনিক...

    এক অভিনব সাইকেল যাত্রা শুরু করলো সিভিক ভলেন্টিয়ার বিপ্লব দাস ।

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো :এক অভিনব সাইকেল যাত্রা শুরু করলো বিরাটির সিভিক ভলেন্টিয়ার বিপ্লব...