27 C
Kolkata
Tuesday, October 4, 2022
More

    হাথরাসে ড্যামেজ কন্ট্রোল: ইউপি সরকার সিবিআই তদন্ত চায়, পুলিশি বাঁধন মুক্ত গ্রাম

    দ্য ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো: উত্তর প্রদেশ সরকার শনিবার হাথরাস হামলা এবং কথিত গণধর্ষণ মামলার পুরো ঘটনার সিবিআই তদন্তের সুপারিশ করেছে, যার মধ্যে পরিবারের উপস্থিতি ছাড়াই মৃতার দ্রুত সত্‍কার নিয়ে তদন্তের বিষয়টিও রয়েছে।

    মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ অতিরিক্ত মুখ্য সচিব অবনীশ কুমার আওয়াস্তি এবং পুলিশের মহাপরিচালক এইচ সি আওয়াস্তির জমা দেওয়া একটি প্রতিবেদনের মাধ্যমে সিবিআই তদন্তের ঘোষণা করেছেন, যাঁরা শনিবার হাথরাস জেলার তাদের গ্রামে নির্যাতিতার পরিবারের সাথে দেখা করেন এবং স্থানীয় প্রতিনিধিদের সাথে সাক্ষাৎ করেন।

    বুধবার ভোর ৩টার দিকে পুলিশ আয়োজিত ১৯ বছর বয়সী ওই নির্যাতিতাকে সত্‍কারের পর গ্রামের চারপাশে পুলিশি অবরোধ তুলে নেওয়া হয়। সফরকালে এই জ্বালিয়ে দেওয়া সম্পর্কে জানতে চাইলে ডিজিপি আওয়াস্তি প্রচার মাধ্যমকে বলেন, “এজন্যই এই পদক্ষেপ (সিট স্থাপন) গ্রহণ করা হয়েছে। অন্যদিকে পরিবারটি সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছে যে তারা রাজ্য সরকারের কাছে এই মামলার সাথে জড়িত সকলের পলিগ্রাফ এবং নার্কো টেস্ট এর দাবি করছে যার মধ্যে পুলিশ কর্মকর্তারাও রয়েছে।

    আক্রান্ত পরিবারের সাথে প্রায় আধ ঘন্টা কাটানোর পর মুখ্য সচিব অবনীশ কুমার এবং ডিজিপি আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে অবনীশ আওয়াস্তি বলেন, “মুখ্যমন্ত্রী উর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং একজন মহিলা কর্মকর্তার নেতৃত্বে একটি সিট গঠন করেছেন। ইতিমধ্যে পরিবারের বক্তব্য তদন্তকারী দল গ্রহণ করেছে। আওয়াস্তি বলেন যে তিনি আশ্বস্ত করছেন যে, পরিবারের উত্থাপিত প্রতিটি বিষয় SIT দ্বারা তদন্ত করা হবে। দোষী’রা যেই হোক না কেন, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

    পরিবারটি জিজ্ঞেস করেছে কেন তাদের এখন পর্যন্ত আইনি পরামর্শ দেওয়া হয়নি। “আমরা জানতে পেরেছি যে নির্ভয়ার আইনজীবী (২০১২ সালের দিল্লি গণধর্ষণের শিকার) আমাদের সাথে দেখা করতে চেয়েছিলেন, কিন্তু পুলিশ তাকে আসতে দেয়নি। আমরা কিভাবে আইনি পরামর্শ ছাড়া চারজন অভিযুক্তের বিরুদ্ধে লড়াই করব?” তার ভাই বলেন।

    নার্কো টেস্ট সম্পর্কে তিনি বলেন, “আমরা আমাদের বোনের জন্য ন্যায়বিচার চাই, কিন্তু আমরা কেন এটা করতে যাব? কর্তৃপক্ষ কি সাধারণত নির্যাতিতার পরিবারকে এই ধরনের পরীক্ষা নিতে বাধ্য করে?

    মূল অভিযুক্ত সন্দীপের পরিবার বলেছে যে তারা চায় যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এই পরীক্ষা করা হোক, “কারণ আমরা চাই তথ্য বেরিয়ে আসুক”। “যদি তারা দোষী হয়, তাহলে তাদের শাস্তি দাও, যেমনটা সরকার উপযুক্ত মনে কর। এক আত্মীয় হরিওম বলেন ” কিন্তু তাদের একটা সুযোগ দেওয়া উচিত, কারণ আমরা জানি কি ঘটেছে।”

    ওই নির্যাতিতার পরিবার জানিয়েছে, ডিজিপি এবং অতিরিক্ত মুখ্যসচিব তাদের নিরপেক্ষ তদন্তের আশ্বাস দিয়েছেন। নির্যাতিতার ভাই বলেন “তারা বলেছে তারা আমাদের সাহায্য করবে এবং অভিযুক্তকে শাস্তি দেয়া হবে। যখন আমরা তাড়াহুড়ো করে দেহ দাহ করা এবং পুলিশ সক্রিয়তা সম্পর্কে অভিযোগ করি, তখন তারা আমাদের সিটকে (SIT) তাদের চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলে। তারা বলেছে যে অনেক উর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা মামলাটি খতিয়ে দেখছে।” সিট, যারা তাদের প্রাথমিক দফা’র জিজ্ঞাসাবাদ সম্পন্ন করেছে, ইউপি সরকারের কাছে একটি প্রতিবেদন জমা দিয়েছে।

    পরিবারটি আরও পুনরাবৃত্তি করেছে যে জেলা কর্তৃপক্ষ তাদের দুই দিনের জন্য তাদের বাড়ির ভেতরে থাকতে বাধ্য করেছে, যেখানে প্রায় ৫০ জন পুলিশ বাইরে দাঁড়িয়ে আছে এবং হাথরাস ডিস্ট্রিক্ট ম্যাজিস্ট্রেট প্রভীন কুমার লাক্সকারকে অভিযুক্ত করেছে যে তারা তাদের বিবৃতি পরিবর্তন করতে এবং তাদের ফোন বাজেয়াপ্ত করার হুমকি দিচ্ছে।

    আক্রান্তের বড় ভাই (২৮) বলেন-“বৃহস্পতিবার সিট টিম আমাদের বাড়িতে এসে পাঁচ থেকে ছয় ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করে। তারা চলে যাওয়ার পর ডিএম স্যার এসে আমাদের তিরস্কার করলেন। সে আমার বোনদের সাথে দুর্ব্যবহার করেছে এবং আমাদের বিবৃতি পরিবর্তন করতে বলেছে। এই কথোপকথনের একটি ভিডিও আমার খুড়তুতো ভাই রেকর্ড করেছে। যখন ভিডিওটি বের হয়, ডিএম আবার এসে আমাদের ফোন বাজেয়াপ্ত করার হুমকি দেয়। তিনি আমাদের বলেছেন যে তিনি জানেন আমরা মিডিয়াকে কি বলি। আমরা ভয় পাই যে আমাদের ফোন ট্যাপ করা হচ্ছে। আমরা তাকে বলেছিলাম যে আমরা তাকে আমাদের ফোন দেব না।”

    ওই মহিলার ভগ্নিপতি বলেন, “তিনি (ডিএম) আমাদের বলেছেন যে সরকার আমাদের যে ক্ষতিপূরণ দিয়েছে তাতে আমরা খুশি হব। তিনি বলেন, মিডিয়া চলে যাওয়ার পর মামলাটি নিষ্পত্তি করা হবে।”

    শুক্রবার মিডিয়ার সাথে কথা বলতে গিয়ে লাক্সকার বলেছিলেন, “আমি পরিবারের সাথে আমার মিথস্ক্রিয়া সম্পর্কে নেতিবাচক গুজব অস্বীকার করছি। আমি তাদের সাথে দুইবার দেখা করেছি এবং তাদের সাথে এই মামলা নিয়ে কথা বলেছি।” এর পাশাপাশি আওয়ানিশ আওয়াস্তি বলেছেন যে গ্রামে পুলিশ মোতায়েন অব্যাহত থাকবে। তিনি বলেন, “আমরা হাথরাসে জনপ্রতিনিধিদের সমর্থন গ্রহণ করব এবং এর সাথে জড়িত সকলের সমর্থন গ্রহণ করব সম্প্রীতি এবং শান্তি নিশ্চিত করার জন্য।”

    Related Posts

    Comments

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    সেরা পছন্দ

    হিন্দু মহাসভার পুজোয় মহিষাসুর রূপে গান্ধীজী ! তুঙ্গে জোর বিতর্ক

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : কলকাতা-সহ সারা রাজ্য জুড়ে বিরাট ধুমধাম করে পালন করা হচ্ছে দুর্গাপুজো। অন্যদিকে দানা বেধেছে...

    বদলে যাচ্ছে ট্রেনের টাইমটেবিল

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : ভারতে দু’কোটি ২৩ লক্ষ মানুষ প্রতি দিন ট্রেনে যাতায়াত করেন। কর্মস্থলে যাওয়ার জন্য লোকাল,...

    চোখ রাঙাচ্ছে ঘূর্ণাবর্ত , বৃষ্টিতে ভিজবে বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : চোখ রাঙাচ্ছে ঘূর্ণাবর্ত। আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস, ওই ঘূর্ণাবর্তের প্রভাবে সপ্তমী থেকেই দক্ষিণবঙ্গে বাড়তে পারে...

    খাড়্গে বনাম থারুর , জমজমাট কংগ্রেস সভাপতি পদের লড়াই

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : সরকারিভাবে কংগ্রেসের সভাপতি নির্বাচন হয়ে গেল দ্বিমুখী। ঝাড়খণ্ডের প্রাক্তন মন্ত্রী কে এন ত্রিপাঠির মনোনয়নপত্র...

    মুস্তাক আলি ট্রফিতে বাংলা দলে বিশ্বকাপজয়ী বোলার দলে নেই অভিজ্ঞ ব্যাটার মনোজ, অনুষ্টুপ

    দ্য ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : ১১ অক্টোবর থেকে শুরু সৈয়দ মুস্তাক আলি ট্রফির দল ঘোষণা করল বাংলা। ক্রিকেটে...