26 C
Kolkata
Thursday, May 26, 2022
More

    রামবিলাস পাসোয়ান, বিহারে যাঁর শিকড় আর দিল্লিতে যাঁর শাখাপ্রশাখা, এক শেষ দলিত সমাজতান্ত্রিক

    দ্য ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো: বেশকিছুদিন রোগভোগের পর হার্ট অপারেশনের পর রাজধানীর এক হাসপাতালে গতকাল রাতে মৃত্যু হল কেন্দ্রীয় খাদ্য ও গণবণ্টন মন্ত্রী রামবিলাস পাসওয়ানের। তাঁর মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে রাজনৈতিক মহলে। দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে প্রায় সব বড় দলের সঙ্গেই কাজ করেছেন এই দলিত সমাজতান্ত্রিক। স্বভাবতই আজ স্মৃতিমেদুর প্রায় সব রাজনৈতিক দলের নেতারা। তাঁর কিছু স্মৃতি আজ তুলে ধরা হ’লো।

    রাম বিলাস পাসোয়ান যখন ১৯৬৯ সালে আলাউলি (খাগারিয়া) থেকে সংযুক্ত সমাজবাদী দলের প্রতিনিধি হিসেবে প্রথম নির্বাচনে জয়লাভ করে পাটনায় আসেন, তখন তিনি জানতেন না তাঁর নেতা কারপুরী ঠাকুরের চেহারা কেমন ছিল। ১৯৭৭ সালে মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে রিজার্ভেশন কার্যকর করে সামাজিক ও রাজনৈতিক পরিবর্তনের সূচনা করেছিলেন যিনি, তিনি এই যুবা MLA কে যতটা শ্রদ্ধা করতেন, ততটাই পাসোয়ান শ্রদ্ধা করতেন ঠাকুরকে।

    খাদ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথগ্রহণের আগে

    পাসোয়ান, যিনি সর্বকালের বৃহত্তম বিজয় মার্জিনের জন্য গিনেস রেকর্ড স্থাপন করতে যাচ্ছিলেন, তিনি সেই প্রথম নির্বাচনে রাজনৈতিক ঢেউ তুলেছিলেন- কংগ্রেস অভিজ্ঞ মিসরি সাদাকে পরাজিত করে, যখন তিনি একটি সাইকেলে প্রচারণা চালিয়েছিলেন, তার বাবা জামুন দাস তাকে কিছু অর্থ দিয়েছিলো যা দিয়ে তিনি একটি স্বাস্থ্য পানীয় কিনেছিলেন।

    পাসোয়ান, যিনি ২০০০ সালে লোক জনশক্তি পার্টি গঠন করেন, অসুস্থতার পর ৭৪ বছর বয়সে তার মৃত্যুর সময় একজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ছিলেন। জগজীবন রামের পর বিহারের সবচেয়ে বড় দলিত নেতা, তার খ্যাতির অন্য দাবি ছিল বিজয়ী দল বাছাই করার এই অদ্ভুত ক্ষমতা এবংযাই হোক না কেন, কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় একটি স্থান ধরে রাখা।

    ১৯৯০ সালে পাসোয়ান একবার এক সাংবাদিককে বলেছিলেন, তিনি বিহারের মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার কাছাকাছি পৌঁছেছিলেন। তিনি বলেন যে তিনি ভি পি সিং এর প্রথম পছন্দ যিনি রাজীব গান্ধীকে পরাজিত করে প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন, কিন্তু সিং শেষ পর্যন্ত আরেকজন দলিত নেতা রাম সুন্দর দাসকে বেছে নেন। পরিশেষে, পাসোয়ানের জুনিয়র লালু প্রসাদ প্রথমবারের মত মুখ্যমন্ত্রী হলেন, রাজ্যের সবচেয়ে লম্বা নেতা হিসেবে তার উপর একটি পদযাত্রা চুরি করে। নির্বাচনে প্রায় হাফ ডজন বার দাসকে পরাজিত করার সান্ত্বনা পাসোয়ান ধরে রাখতেন।

    ২০০৫ সালে পাসোয়ান মুখ্যমন্ত্রীর পদে বসার আর একবার সুযোগ আসে যখন এলজেপি ২৯টি আসন পায় এবং একটি সরকার গঠনের চাবি ধরে রাখে যে সময়ে কে সরকার গড়বে সেই নিয়ে বিষয়টি ঝুলে ছিল। তিনি দাবি করেন যে এইচ ডি দেবগৌড়া ১৯৯৭ সালে এপ্রিলে পদত্যাগ করার পর সম্ভাব্য প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আলোচনা করা হয়েছে। তিনি বলেন, “এটি একটি বাইরের সুযোগ ছিল, কিন্তু এটি একটি অবর্ণনীয় গ্রাম খাগারিয়ার একটি ছেলের জন্য বিশাল সম্মানের বিষয় ছিল।”

    প্রধান মন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী’র সাথে রামবিলাস পাসোয়ান

    ১৯৭৪-৭৫ সালের জেপি আন্দোলনের সরাসরি পণ্য না হলেও, লালু, নীতীশ কুমার এবং সুশীল কুমার মোদীর মতো বিহারের অন্যান্য নেতাদের মত তিনি জয়প্রকাশ নারায়ণের ঘনিষ্ঠ ছিলেন। ১৯৭৭ সালের লোকসভা নির্বাচনে ইন্দিরা গান্ধী জেপি আন্দোলনের উপ-পণ্য হিসেবে ক্ষমতাচ্যুত হন, পাসোয়ান হাজিপুর আসনে নিজেকে “জেপির প্রার্থী” বলে অভিহিত করেন। তিনি বেশ কয়েকবার নির্বাচনী এলাকার প্রতিনিধিত্ব করতেন। যখন অসুস্থতার কারণে ২০১৯ সালে প্রচারণা করতে অক্ষম হন, তিনি একটি আবেগপ্রবণ বক্তৃতা দেন। লোক কথায় প্রচলিত যে হাজিপুর দুটি জিনিসের জন্য বিখ্যাত ছিল- এর কলা এবং রাম বিলাস পাসোয়ান।

    যখন রাজনীতি তিক্ত এবং দৃশ্যমান হয়ে উঠেছে এমন এক সময়ে তখন তিনি বন্ধুত্ব এবং তাঁর বৃহৎ হৃদয়ের জন্য পরিচিত একজন প্রিয় নেতা, পাসোয়ান কখনই লালু বা নীতীশের ঘনিষ্ঠ ছিলেন না, যদিও তারা কেন্দ্রে একই জায়গার জন্য লড়াই করেছিলেন। তার আরেকটি দাবি ছিল যে ইউপিএ লালুপ্রসাদের প্রতি অঙ্গীকার করায় ২০০৪ সালে শেষ মুহূর্তে তাকে রেল মন্ত্রণালয় থেকে বঞ্চিত করা হয়।

    ২০০২ সালের গুজরাট দাঙ্গা য় বিচ্ছেদের ১০ বছর পর ২০১৪ সালে যখন তিনি এনডিএ-তে যোগ দেন, তখন তিনি সংবাদ মাধ্যমকে বলেছিলেন যে জোট নীতীশকে বেশি অগ্রাধিকার দিতে শুরু করেছে। এবং যখন পাসোয়ান কেন্দ্রে লাইমলাইটে থাকতে পছন্দ করেন, তিনি রাজ্যে তার দখল নিশ্চিত করেন, লালু এবং নীতীশের পর বিহার রাজনীতির তৃতীয় কোণ থেকে। তার এলজেপি অন্তত ৫-৭% ভোট ভাগাভাগি রদখলে রয়েছে, যার মধ্যে পাসোয়ান কার্যত তার একমাত্র ব্যাংকযোগ্য নাম।

    পাসোয়ান শীতকালে একটি লম্বা ওভারকোট পড়তেন, কিন্তু বিহার তাকে তার উৎপত্তিগত শিকড়ের নেতা হিসাবে স্মরণ করবে। দেশের পরিচিত শেষ দলিত সমাজতান্ত্রিক হারানোর জন্য রাষ্ট্রের রাজনীতি যথেষ্টভাবেই স্বজন হারা হলো।

    Related Posts

    Comments

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    সেরা পছন্দ

    ফের বেসরকারিকরণের পথে রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা ! তালিকায় আর কোন কোন সংস্থা ?

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : ফের বেসরকারিকরণের পথে একটি রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা। এবার হিন্দুস্তান জিঙ্ক। দেশের বৃহত্তম ইন্টিগ্রেটেড জিঙ্ক প্রস্তুতকারী...

    ‘মাঙ্কিপক্স’ মোকাবিলায় কতটা প্রস্তুত ভারত ? কি বলছে বিশেষজ্ঞরা

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : করোনা মহামারির বিপদ কাটতে না কাটতেই শিয়রে অন্য বিপদ, ‘মাঙ্কিপক্স’ সংক্রমণ। WHO-র সাম্প্রতিকতম তথ্য...

    ত্রাতা সেই মুখ্যমন্ত্রী , নতুন ইনভেস্টর পেল ইস্টবেঙ্গল ক্লাব

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : ত্রাতা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে ইনভেস্টর সমস্যা মিটে গেল ইস্টবেঙ্গলে। লাল-হলুদে ইনভেস্টর হিসাবে...

    করোনা মোকাবিলায় মোদীর প্রশংসায় পঞ্চমুখ বাইডেন , দুষলেন চীনকে

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : কয়েকদিন আগে WHO জানিয়েছিল, কোভিডে মৃতের সংখ্যা চেপে গিয়েছে ভারত। কিন্তু মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো...

    আগামীকাল ভারত বনধের ডাক ! একাধিক দাবি সংখ্যালঘু সম্প্রদায় কর্মচারী ফেডারেশনের

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : আবারও ২৫ মে ভারত বনধের ডাক। ভোটে ইভিএম-র ব্যবহার বন্ধ সহ একাধিক বিষয়ে ভারত...