24 C
Kolkata
Tuesday, March 21, 2023
More

    ভারত থেকেই ছড়িয়েছে করোনা ভাইরাস! হটাত্‍ করেই চীনের আজব দাবি নতুন করে উত্তেজনা বাড়ালো

    দ্য ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো: গত এক বছর ধরেই সমগ্র বিশ্বের কাছে উহান ছিল করোনা ভাইরাসের আঁতুড়ঘর! আর এই বিষয়টাকে নিজেদেড় ঘাড় থেকে ঝেড়ে ফেলার জন্যেই দীর্ঘদিন ধরেই নিজেদের দোষ অন্যের ঘাড়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে চীন। একদম প্রথমে ইউরোপের ঘাড়ে তারা দোষ চাপিয়েছিল এরপর তাদের নিশানাতে ছিল আমেরিকার সাথে আন্তর্দেশীয় সেনা-মহড়া। এখন হটাত্‍ করেই চীনের গবেষকরা দাবি করেছেন যে করোনাভাইরাসের উদ্ভব ভারতে হয়েছিল!

    উল্লেখ্য, চাইনিজ অ্যাকাডেমি অফ সায়েন্সেসের একটি দল যুক্তি দিয়েছে যে ২০১৯ সালের গ্রীষ্মকালে ভাইরাসটির উদ্ভব সম্ভবত ভারতে হয়েছিল। আর প্রাথমিকভাবে দূষিত জলের মাধ্যমে প্রাণীদের থেকে মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। এই ভাইরাস ভারত থেকে চীনে প্রবেশ করে চীনের উহানে ছড়িয়ে পড়ে। আর এরপর উহান থেকেই প্রথম অফিসিয়াল ভাবে এই ভাইরাকে শনাক্ত করা হয়েছিল।

    এই হটাত্‍ দাবি নিয়ে বিশেষজ্ঞদের মতে এমনিতেই সীমান্ত নিয়ে সংঘাত জারি রয়েছে ভারতও চীনের। সমস্যা মেটাতে আলোচনাও চলছে। তার মধ্যেই চীনের এই দাবি নতুন করে দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা বাড়াল। ওই গবেষকদের দল তাদের গবেষণাপত্রে, করোনাভাইরাসের উত্‍স শনাক্ত করতে ফাইলোজেনেটিক বিশ্লেষণ ব্যবহার করেছে। করোনাভাইরাসের কোষগুলি পুনরুত্‍পাদন করার সাথে সাথে পরিবর্তিত করে, যার অর্থ যতবার তারা প্রতিলিপন করে ততবার তাদের ডিএনএতে ছোটোখাটো পরিবর্তন ঘটে। যদিও ওই বিজ্ঞানীরা এই দাবিকে খারিজ করেছ যে উহানের ভাইরাস আদি ভাইরাস। ওই গবেষকদল বরং অন্য আটটি দেশের দিকে আঙুল তুলেছেন- যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য বাংলাদেশ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, গ্রিস, অস্ট্রেলিয়া, ভারত, ইতালি, চেক প্রজাতন্ত্র, রাশিয়া বা সার্বিয়া।

    ওই গবেষকরা এও যুক্তি দেখিয়েছেন যে ভারত এবং বাংলাদেশ উভয়ই কম পরিব্যক্তি নিয়ে নমুনা রেকর্ড করেছিল এবং ভৌগলিকভাবে প্রতিবেশী, তাই সম্ভবত সেখানেই প্রথম সংক্রমণ ঘটেছিল। তাদের অপরিকল্পিত তত্ত্বটি আরও বলেছে যে জলের অভাবে বানরের মতো বন্যপ্রাণীরা একে অপরের সঙ্গে ভয়াবহ লড়াইয়ে লিপ্ত হয়েছিল এবং অবশ্যই এটি মানুষ-বন্যপ্রাণী সংস্পর্শের সম্ভাবনা বাড়িয়ে তুলেছিল। তারা লিখেছে যে অনুমান করেছি যে করোনাভাইরাস সংক্রমণ এই অস্বাভাবিক তাপ তরঙ্গের সঙ্গে সম্পর্কিত হতে পারে। ভারতের দুর্বল স্বাস্থ্য পরিষেবা ব্যবস্থা এবং তরুণ জনসংখ্যার কারণেই বেশ কয়েক মাস ধরে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছিল।

    বিশেষজ্ঞদের মতে সমগ্র বিশ্বের টিকার উদপাদন বিষয়ে ভারতের ওপরে নির্ভরশীলতাকে মেনে নিতে চাইছে না চীন। ভারতের ‘কোভ্যাক্সিন’ ও যথেষ্ট আশাপ্রদ ফল করেছে। অন্যদিকে সুপার ভ্যাকসিন বলে বলে চীন একাধিক ভ্যাকসিন এর অবতারণা করলেও সমগ্র বিশ্বের কাছে সেগুলোর গ্রহণযোগ্যতা শূন্য। এবার ঘুর পথে ভারতের বদনাম করে টিকার বয়সিক বাণিজ্যে প্রভাব সৃষ্টি করতে চাইছে চীন।

    Related Posts

    Comments

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    সেরা পছন্দ

    সরে গেল ‘এটিকে’ , পরের মরশুমে ঝড় তুলতে আসছে ‘মোহনবাগান সুপার জায়ান্টস’

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পরে বড় ঘোষণা করলেন সঞ্জীব গোয়েঙ্কা। মোহনবাগানের নামের শুরু থেকে সরে গেল...

    ভারতসেরা ‘মোহনবাগান’ ! বাঙালির গর্বের দিন

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : চাপ বনাম পাল্টা চাপ। পেনাল্টি বনাম পাল্টা পেনাল্টি। অফুরান দৌড় আর স্কিলের ফুলঝুরি দেখাতে...

    ISL চ্যাম্পিয়ন এটিকে মোহনবাগান

    দ্য ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : আই এস এল ফাইনালে রুদ্ধশ্বাস জয় ছিনিয়ে নিলো এটিকে মোহনবাগান । বেঙ্গালুরু এফসিকে টাইব্রেকারে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হলো...

    বাড়িতে আনুন বেশকিছু হোমিওপ্যাথি ঔষধ , পাবেন বহু সমস্যা মুক্তি

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : হোমিওপ্যাথি এক পুরনো চিকিৎসা পদ্ধতি। আয়ুর্বেদের সঙ্গেও এই চিকিৎসা পদ্ধতির বেশ কিছু মিল...

    বড় বড় মার্কিন ব্যাংকের পতন ! আসছে মহামন্দা ?

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : সিলিকন ভ্যালি ব্যাঙ্ক এবং সিগনেচার ব্যাঙ্ক – পর পর দুই বড় মাপের মার্কিন ব্যাঙ্কের...