28 C
Kolkata
Sunday, June 26, 2022
More

    একফুটের লক্ষ্মী প্রতীমার পুরোটাই তৈরি ধান, যব, তিল, কলাই, মুগ, কালো ও সাদা সরষে দিয়ে

    দ্য ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো: লকডাউন আবহে টান পড়েছে সাধারণ মানুষের অন্নবস্ত্রে। সেই কঠিন সময়ের কথা মাথায় রেখে ১২ রকম মাটির সতেহ খাদ্যশস্য মিশিয়ে ও বস্ত্র হিসাবে রেশম, তুলা, পাটকে ব্যবহার করে ধন দেবী লক্ষ্মী’র প্রতীমা গড়লেন পুরুলিয়ার এক স্কুল শিক্ষক। তাঁর সেই হাতের সূক্ষ্ম কারুকাজে মাটির প্রতিমা যেন সাক্ষাত্‍ জীবন্ত লক্ষ্মী রূপে ফুটে উঠছে! বুধবার বিকেলে পুরুলিয়ার রাঁচি রোড বাই লেনে নিজের বাড়িতে ওই প্রতিমার সম্পূর্ণ কাজ শেষ করেন শিক্ষক শংকর মুখোপাধ্যায়।

    উল্লেখ্য, প্রতি বছরই শিক্ষক শংকর বাবু নিজের হাতে লক্ষ্মী গড়ে তার আরাধনা করেন। আর প্রতি বছরেই এই প্রতিমা গড়ার কাজে ব্যবহার করেন কারেন্ট ইস্যুকে। এইভাবেই বিগত ১৪ টি বছর ধরে তিনি নিজের হাতে লক্ষ্মী প্রতীমা তৈরি করে পুজো করে আসছেন মুখোপাধ্যায় বাবু। এবারও তাঁর হাতের তৈরি লক্ষ্মী প্রতিমা তাক লাগাল পুরুলিয়া শহরে। আজ বৃহস্পতিবার পুজোর একদিন আগেই প্রায় এক ফুটের লক্ষ্মী প্রতিমা সোনার অলঙ্কারে সেজে উঠবে।

    এবারও তিনি লক্ষ্মী প্রতিমা তৈরিতে ১২ রকমের মাটি ব্যবহার করেছেন। একেবারে ছেলেবেলা থেকেই তাঁর হাতের কাজ সকলের চোখ আকর্ষণ করেছিল। তবে হাতেকলমে কখনও মূর্তি তৈরির কাজ শেখেননি। কিন্তু মাতৃপ্রতিমার টানে কুমোর পাড়ায় বসে থাকা আজও তাঁর অভ্যাস। আর সেই কুমোরদের হাতের কাজ দেখেই তিনি গত ১৪ বছর ধরে নিজ হাতে লক্ষ্মী গড়ে বাড়িতে আরাধনা করে আসছেন। তিনি বর্তমানে পুরুলিয়া শহরের বেলকুঁড়ির রামকৃষ্ণ বিবেকানন্দ মিশনের একজন সংস্কৃত শিক্ষক। শুধু মূর্তি গড়াই নয়। তাঁর হাতের বাহারি আলপনা মোহিত করে আপামর সকলকেই। শিক্ষকতার ফাঁকে ফাঁকেই অবসরে তাঁর এই শিল্পকর্ম পুরুলিয়াবাসীদের গর্ব।

    লক্ষ্মী প্রতিমায় এবারও তিনি ব্যবহার করেছেন যজ্ঞশালা, সমুদ্র, গোষ্ঠ, চতুষ্পদ, বল্মীকি, তীর্থ দেবদ্বার, পুষ্করিনী, কুশমূল, রাজদ্বার, গঙ্গা ও বেশ্যাদ্বার থেকে নিয়ে আসা মাটি। গত বছর তিনি টানা ১২ মাস ধরে এই মাটিগুলি সংগ্রহ করেছিলেন। এবারও সেই মাটির সাথেই ব্যবহার করেছেন খাদ্যশস্য। আর রেশম, পাট ও তুলোর সাহায্যে প্রতিমা ও তার আলয় তৈরি করেছেন। মূলত ধান, যব, তিল, কলাই, মুগ, কালো ও সাদা সরষে দিয়েই চার ফুট উচ্চতা ও পাঁচ ফুট চওড়ার বৃহত্‍ লক্ষ্মী আলয় তৈরি করেন তিনি।

    মহালয়ার প্রায় সপ্তাহতিনেক আগে থেকেই তিনি কাজ শুরু করেছেন। মা লক্ষ্মীর মেরুন শিফন জরির শাড়িও নিজ হাতে সেলাই করা। লক্ষ্মীর ঝাঁপি তৈরিতে ব্যবহার করেছেন থার্মোকল, পাথর, জরি আর পুঁথি। সেই সঙ্গে ছোট ছোট রঙিন পাথরের সাহায্যে লক্ষ্মীর কোমরবন্ধনী, রানিহার, চিক, কানের দুল, আংটি, মুকুট, নথ, চু়ড়ি, নুপূর-সহ নানা অলংকারও গড়েছেন নিজের হাতেই। শংকরবাবুর এই প্রয়াস প্রতিবারের মত এবারও মানুষের নজর কেড়েছে।

    Related Posts

    Comments

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    সেরা পছন্দ

    আগামী সোমবার খুলে যাচ্ছে রাজ্যের সব স্কুল

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : আগামী ২৭ জুন থেকে খুলে যাচ্ছে রাজ্যের সমস্ত সরকারি স্কুল। রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু...

    পুজোর বাকি ১০০ দিন ! অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় বাঙালি

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : পুজোর বাকি ১০০ দিন। এখন থেকেই পুজোর প্ল্যানিং ? এখনও ঢের বাকি ! না,...

    দুর্বল মৌসুমী বায়ু ! অনিশ্চিত বর্ষা

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : মৌসুমি বায়ু ঢুকলেও দক্ষিণবঙ্গে দুর্বল হয়ে পড়ল। আগামী কয়েকদিন বিশেষ বৃষ্টির সম্ভাবনা দেখছেন না...

    আরেকটা করোনা বিস্ফোরণের মুখে দাঁড়িয়ে রাজ্য ?

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : রাজ্যে ভয়াবহ আকার নিল করোনা। এক লাফে ৭০০ পার করল দৈনিক সংক্রমণ। বৃহস্পতিবার দৈনিক...

    এক অভিনব সাইকেল যাত্রা শুরু করলো সিভিক ভলেন্টিয়ার বিপ্লব দাস ।

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো :এক অভিনব সাইকেল যাত্রা শুরু করলো বিরাটির সিভিক ভলেন্টিয়ার বিপ্লব...