31 C
Kolkata
Sunday, June 26, 2022
More

    তাহলে কী খুব শিগগিরই সমুদ্রের জলের নিচে যেতে চলেছে দিঘা-কলকাতা-ওড়িশা-চেন্নাই

    দ্য ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো: বিশ্ব উষ্ণায়ণের জন্যে প্রতিদিন হু হু করে গলছে বরফ। এর প্রভাবে ক্রমশ বেড়ে চলেছে সমুদ্রের জলস্তর। সমীক্ষায় যে তথ্য উঠে আসছে তা অত্যন্ত ভীতির। মাত্র ১ বছরেই গ্রীনল্যান্ডের ৫৩২ টন বরফ গলে গিয়েছে। পরিসংখ্যান বলছে, প্রতিদিন হ্যাঁ প্রতিদিন সমুদ্রের জল বাড়ছে ৩০ লক্ষ টন করে। এর অর্থ, প্রতি সেকেন্ডে ছ’টি করে অলিম্পিকের সুইমিং পুলের সমান জল বাড়ছে সমুদ্রে। এই পরিসংখ্যান হাতে আসার আগেই, নাসা (NASA)-র পাঠানো উপগ্রহ ছবিতে দেখা গিয়েছিল আন্টার্কটিকার বরফের চাদর প্রায় ২০% গলে গিয়েছে।

    পরিবেশ বিজ্ঞানীদের মতে বিশ্ব উষ্ণায়নের জেরেই এই বরফ গলছে। উপগ্রহ চিত্র মারফত পাওয়া ছবি অনুযায়ী গত ফেব্রুয়ারি মাসের শুরুর ৯ দিনে তীব্র তাপপ্রবাহ চলেছিল। যার ফলেই এই অবস্থা হয়েছে আন্টার্কটিকার উত্তরে। শুধু তাই নয় এই প্রথমবার আন্টার্কটিকার উত্তরের যে অঞ্চলগুলি কখনওই বরফের কারনে দেখা যেতো না সেগুলো এই মাত্র ৯ দিনের তাপপ্রবাহের কারণে উন্মুক্ত হয়েছিল। ইতিমধ্যেই সমস্ত বরফ গলে বেরিয়ে আসছে স্বচ্ছ জলের ধারা।

    গলে যাওয়া বরফের ওপরে অসহায় পেঙ্গুইন। ছবি : নেচার পত্রিকা

    উল্লেখ্য এই চলতি মাসের শুরুর দিকে রেকর্ড উষ্ণতম দিনের সাক্ষী হয় আন্টার্কটিকা। তাপমাত্রা পৌঁছে যায় ৬৪.৯ ডিগ্রি ফারেনহাইটে। ওই দিন আমেরিকার লস এঞ্জেলেসেও একই তাপমাত্রা ছিল। বিজ্ঞান পত্রিকা ‘‌নেচার’‌-এর রিপোর্ট অনুযায়ী, বিশ্ব উষ্ণায়নের ফলে ২০১২ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত, গত পাঁচ বছরে অ্যান্টার্কটিকার বরফের স্তর তিন গুণ বেশি গলে গিয়েছে।

    বিজ্ঞানীদের হিসাব অনুযায়ী, আন্টার্কটিকায় প্রতি বছর ২৪১ বিলিয়ন টন বরফ গলেছে ফলে সব সমুদ্রেই বাড়ছে জলস্তর। অথচ, ১৯৯২ সাল থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত অ্যান্টার্কটিকায় প্রতিবছর বরফ গলেছিল ৮৪ বিলিয়ন টন। অনুমান করা হচ্ছে এই শতকের শেষের দিকে অ্যান্টার্কটিকার বরফ গলে সমুদ্রের জলস্তর ১৬ সেন্টিমিটার বাড়তে পারে।

    খুব শিগগির বদলে যাবে এই দৃশ্য। ছবি: দ্য ক্যালকাটা মিরর. কম

    নাসার উপগ্রহ চিত্রে দেখা গিয়েছে মাত্র এক সপ্তাহের কিছু বেশি সময়ের মধ্যেই আন্টার্কটিকার ঈগল আইল্যান্ডের চূড়ার চার ইঞ্চি বরফের আস্তরণ গলে গিয়েছে। যার কারণ হিসেবে ক্রমবর্ধমান উষ্ণতাকেই দায়ী করা হচ্ছে। জিওলজিস্ট মৌরী পেলটো (ম্যাসাচুসেটসের নিকোলস কলেজে) অবজারভেটরিকে জানিয়েছেন, ‘আন্টার্কটিকায় এত তাড়াতাড়ি গলে যাওয়া মিষ্টি জলের পুকুর কখনও এর আগে দেখিনি। এ ভাবে বরফ গলে যাওয়ার দৃশ্য আলাস্কা ও গ্রিনল্যান্ডে দেখা গেলেও তা আগে কখনও হয়নি আন্টার্কটিকায়।’

    Related Posts

    Comments

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    সেরা পছন্দ

    আগামী সোমবার খুলে যাচ্ছে রাজ্যের সব স্কুল

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : আগামী ২৭ জুন থেকে খুলে যাচ্ছে রাজ্যের সমস্ত সরকারি স্কুল। রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু...

    পুজোর বাকি ১০০ দিন ! অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় বাঙালি

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : পুজোর বাকি ১০০ দিন। এখন থেকেই পুজোর প্ল্যানিং ? এখনও ঢের বাকি ! না,...

    দুর্বল মৌসুমী বায়ু ! অনিশ্চিত বর্ষা

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : মৌসুমি বায়ু ঢুকলেও দক্ষিণবঙ্গে দুর্বল হয়ে পড়ল। আগামী কয়েকদিন বিশেষ বৃষ্টির সম্ভাবনা দেখছেন না...

    আরেকটা করোনা বিস্ফোরণের মুখে দাঁড়িয়ে রাজ্য ?

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : রাজ্যে ভয়াবহ আকার নিল করোনা। এক লাফে ৭০০ পার করল দৈনিক সংক্রমণ। বৃহস্পতিবার দৈনিক...

    এক অভিনব সাইকেল যাত্রা শুরু করলো সিভিক ভলেন্টিয়ার বিপ্লব দাস ।

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো :এক অভিনব সাইকেল যাত্রা শুরু করলো বিরাটির সিভিক ভলেন্টিয়ার বিপ্লব...