29 C
Kolkata
Monday, October 3, 2022
More

    অতিবেগুনি রশ্মিতেই লুকিয়ে করোনা নিধন ‘অস্ত্র’, জানালো এক মার্কিন গবেষণা

    দ্য ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো: কোভিড-১৯ মহামারী সৃষ্টিকারী নভেল করোনা ভাইরাসের মৃত্যু সূর্যের হাতেই! হ্যাঁ, সাম্প্রতিক এক গবেষণাতে দেখা গিয়েছে বিশেষ এক ধরনের অতিবেগুনি রশ্মির দ্বারা পুরোপুরি ধ্বংস করা যায় এই মারণ ভাইরাসকে। আর এই বিষয়টি আমেরিকার একটি গবেষণাপত্রে দাবি করা হয়েছে।

    ঐ গবেষণা’য় অংশগ্রহণকারী বিজ্ঞানীদের মতে, যে বিশেষ ধরণের অতিবেগুনি রশ্মি বা আলট্রাভায়োলেট রে বিকিরণ করোনা নিধনে ব্যাবহার করা হয় তার মানবশরীরের ওপরে এখনো কোনো ক্ষতিকর প্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি এবং এই রশ্মির সুবিধা এই যে, অনেক বড় এবং ভিড়ের জায়গা সহজেই জীবাণুমুক্ত করে ফেলা যাবে। আর এর জন্যে জায়গা ফাঁকা করার দরকারও নেই।

    এই বিষয়ক সম্পূর্ণ গবেষণাপত্রটি সম্প্রতি আমেরিকান জার্নাল অফ ইনফেকশন কন্ট্রোল-এ প্রকাশিত হয়েছে। সেই গবেষণাপত্রে বলা হয়েছে যে আলট্রাভায়োলেট-সি (ইউভিসি) রশ্মি করোনাভাইরাস নিকেশ করতে সক্ষম তার ওয়েভলেংথ ২২২ ন্যানোমিটার এবং সবচেয়ে মজার বিষয় এই ওয়েভলেংথ এর অতিবেগুণী রশ্মি কোনভাবেই মানুষের ত্বক ভেদ করতে পারে না বা শরীরের কোষ মারতে পারেনা।

    এই গবেষণাতে অংশগ্রহণ করেছেন জাপানের হিরোশিমা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা। এই গবেষকদল ২২২ ন্যানোমিটার যুক্ত ইউভিসি বা ফার-ইউভিসি সংক্রান্ত এই পরীক্ষার আগের আর এক পরীক্ষায় জানতে পারে, মরশুমি করোনা ভাইরাস খতম করতে এই আলোকরশ্মির জুড়ি মেলা ভার। উল্লেখ্য, এই সিসনাল ভাইরাসের সঙ্গে কাঠামোগত সাদৃশ্য রয়েছে নভেল করোনাভাইরাসের।

    ঐ গবেষণাপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে যে, এই পরীক্ষায় ব্যবহৃত ২২২ ন্যানোমিটার ওয়েভ লেংথ যুক্ত ইউভিসি (uvc) ২৫৪ ন্যানোমিটার যুক্ত ইউভিসি-র চেয়ে মানুষের শরীরে কম ক্ষতিকর, কারণ এই রশ্মি মানুষের ত্বক ও চোখ ভেদ করতে পারে না। তাই এটি সম্পূর্ণ সুরক্ষিত জীবাণু দমনের একটি কার্যকর প্রযুক্তি।’

    ঐ গবেষণায় বিজ্ঞানীরা দেখিয়েছেন মাত্র ৩০ সেকেন্ডের মধ্যেই ৯৯.৭% নভেল করোনাভাইরাস খতম করেছে ঐ রশ্মি। এর পাশাপাশি বিজ্ঞানীরা এও জানিয়েছেন যে ২৫৪ ন্যানোমিটার ওয়েভ লেংথ যুক্ত অতিবেগুনি রশ্মির সাহায্যে যেকোনো ফাঁকা ঘর জীবাণুমুক্ত করা নিরাপদ।

    উল্লেখ্য, বিজ্ঞানীদের এই খোঁজ জনবহুল পাবলিক প্লেস (যেমন, স্টেশন, বাজার, হাসপাতাল করিডোর, হোটেল লবী ও রুম কে স্যানিটাইজার ছিটিয়ে জীবাণুমুক্ত করার থেকে স্বল্প সময়ের মধ্যেই আলোর সহায়তাতে সহজেই জীবাণুমুক্ত করা যাবে। সেই সাথে মানুষের শরীরেও এর কোনো প্রভাব না থাকায়, মানুষকে সরানোর ও প্রয়োজন পড়বে না।

    আসন্ন পুজোতে কলকাতায় ভিড় কে এই রকম অতিবেগুনি রশ্মির সহায়তায় স্যানিটাইজের ব্যবস্থা করলে কেমন হয়?

    Related Posts

    Comments

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    সেরা পছন্দ

    বদলে যাচ্ছে ট্রেনের টাইমটেবিল

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : ভারতে দু’কোটি ২৩ লক্ষ মানুষ প্রতি দিন ট্রেনে যাতায়াত করেন। কর্মস্থলে যাওয়ার জন্য লোকাল,...

    চোখ রাঙাচ্ছে ঘূর্ণাবর্ত , বৃষ্টিতে ভিজবে বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : চোখ রাঙাচ্ছে ঘূর্ণাবর্ত। আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস, ওই ঘূর্ণাবর্তের প্রভাবে সপ্তমী থেকেই দক্ষিণবঙ্গে বাড়তে পারে...

    খাড়্গে বনাম থারুর , জমজমাট কংগ্রেস সভাপতি পদের লড়াই

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : সরকারিভাবে কংগ্রেসের সভাপতি নির্বাচন হয়ে গেল দ্বিমুখী। ঝাড়খণ্ডের প্রাক্তন মন্ত্রী কে এন ত্রিপাঠির মনোনয়নপত্র...

    মুস্তাক আলি ট্রফিতে বাংলা দলে বিশ্বকাপজয়ী বোলার দলে নেই অভিজ্ঞ ব্যাটার মনোজ, অনুষ্টুপ

    দ্য ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : ১১ অক্টোবর থেকে শুরু সৈয়দ মুস্তাক আলি ট্রফির দল ঘোষণা করল বাংলা। ক্রিকেটে...

    গল্‌ফ মঞ্চে বিশ্বকাপজয়ী কপিল-‌ধোনি

    দ্য ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : গুরগাঁওয়ে আমন্ত্রণীমূলক গল্‌ফের মঞ্চে প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক কপিল দেব ও মহেন্দ্র সিংহ ধোনি।...