অবশেষে বুড়ো আলো প্রমাণ করল মহাবিশ্বের সঠিক বয়স!

0
33

সন্তু ধর

বেশ কয়েক দশক ধরেই জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের মধ্যে একটি প্রশ্ন বেশ বিতর্কের সৃষ্টি করেছে। মহাবিশ্বের বয়স কত? এই নিয়ে মতানৈক্য থাকলেও অবশেষে বিতর্কের অবসান ঘটেছে বলা চলে। কী ঘটেছে? আজ জেনে নেব বিস্তারে।

সম্প্রতি স্টনি ব্রুক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নীলিমা শেগাল (পিএইচডি ) এর নেতৃত্বে তাঁর সহযোগী জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের একটি আন্তর্জাতিক দলের দ্বারা বিভিন্ন গবেষণাপত্রে প্রকাশিত নতুন গবেষণায় জানা গিয়ছে যে আমাদের মনে প্রশ্ন তোলা এই মহাবিশ্বের বয়স প্রায় ১৩.৮ বিলিয়ন বছর।

 তাদের এই অনুসন্ধানগুলি  চিলির আতাকামা কসমোলজি টেলিস্কোপ (অ্যাক্ট) থেকে পর্যবেক্ষণগুলি ব্যবহার করে, একই প্রাচীন আলোর প্ল্যাঙ্ক উপগ্রহের উপাত্তগুলির পরিমাপের সাথে মিলে গিয়েছে।

অ্যাক্ট গবেষণা দলটি সাতটি দেশের ৪১ টি প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞানীদের একটি আন্তর্জাতিক সহযোগিতা। যেখানে স্টনি ব্রুকের অধ্যাপক শেহগালের নেতৃত্বে কলেজ অফ আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সেসের পদার্থবিজ্ঞান এবং জ্যোতির্বিজ্ঞান বিভাগের দল মহাজাগতিক মাইক্রোওয়েভ পটভূমি (সিএমবি) বিশ্লেষণে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন।  এই মাইক্রোওয়েভ পটভূমি (সিএমবি) বিগ ব্যাংয়ের পরের আলো। অর্থাত্‍ যাকে আমরা বলি বুড়ো আলো। 

এই গবেষণাপত্রের সহ-লেখক প্রফেসর শেহগল বলেছেন- ‘স্টনি ব্রুকের নেতৃত্বে কাজ করা এই দলটি মহাবিশ্বের ‘শিশু ছবি’টিকে তার মূল অবস্থাতে পুনরুদ্ধার করতে পেরেছে, যা এতদিন ধরে সময় এবং স্থানের পরিধান এবং চিত্রকে বিকৃত করে ফেলা হয়েছিল,” তিনি এও বলেন যে “কেবলমাত্র মহাবিশ্বের এই তীক্ষ্ণ শিশুর ছবি বা চিত্র দেখে আমরা কীভাবে আমাদের মহাবিশ্বের জন্ম হয়েছিল তা আরও পুরোপুরি বুঝতে পারি”। 

এই গবেষণা মহাবিশ্বের উৎপত্তি সম্পর্কে আরও ভালভাবে বুঝতে সাহায্য করে, আমরা পৃথিবীতে কোথায় আছি, গ্যালাক্সিগুলি কোথায় চলেছি, মহাবিশ্বটি কীভাবে শেষ হতে পারে এবং কখন যে শেষ হতে পারে। 

এই গবেষণাতে অ্যাক্ট দলটি তার প্রাচীনতম আলো পরিমাপ করে মহাবিশ্বের বয়স অনুমান করে এবং অন্যান্য বৈজ্ঞানিক দলগুলি মহাবিশ্বের বয়স অনুমান করতে গ্যালাক্সির পরিমাপ নেয়। 

arXiv.org এ পোস্ট করা অনুসন্ধানে নতুন গবেষণাপত্রের প্রথম লেখক সিমোন আইওলা বলেছেন যে “মহাবিশ্বের বয়স সম্পর্কে নতুন অ্যাক্ট অনুমানটি মহাবিশ্বের মানক মডেল দ্বারা সরবরাহিত প্ল্যানক উপগ্রহের দ্বারা তৈরি একই আলোর পরিমাপের সাথে মেলে। যা অ্যাস্ট্রো ফিজিক্স সম্প্রদায়ের একটি চলমান বিতর্কে একটি নতুন মোড় জুড়ে দেয়। 

নিউ ইয়র্ক সিটির ফ্ল্যাটারন ইনস্টিটিউটের সেন্টার ফর কম্পিউটেশনাল অ্যাস্ট্রো ফিজিক্সের গবেষক আইওলা আরো বলেছেন যে, “এখন আমরা একটি উত্তর নিয়ে এসেছি যেখানে প্ল্যাঙ্ক এবং অ্যাক্ট সম্মত হন।” “এটিও সত্য যে এটি এই কঠিন পরিমাপ যে যথেষ্ট নির্ভরযোগ্য সেটাও এই গবেষণা প্রমাণ করেছে। “

হাবল ধ্রুবকের দ্বারা সংখ্যায়িত সংখ্যা এটিও প্রকাশ করে যে মহাবিশ্ব কতটা দ্রুত প্রসারিত হচ্ছে। অ্যাক্ট পরিমাপে হাবল ধ্রুবকটির প্রতি মেগা /সেকেন্ড /সেকেন্ডে 67.6 কিলোমিটারের পরামর্শ দেয়। এর অর্থ পৃথিবী থেকে 1 মেগা / সেকেন্ড (প্রায় 3.26 মিলিয়ন আলোক-বছর) যা মহাবিশ্বের প্রসারণের কারণে আমাদের থেকে প্রতি সেকেন্ডে 67.6 কিলোমিটার দূরে  সরে চলেছে। 

এই ফলাফলটি প্ল্যাঙ্ক স্যাটেলাইট দল দ্বারা প্রতি মেগা/সেকেন্ড/ সেকেন্ডে 67.4 কিলোমিটার/সেকেন্ড/মেগ সেকেন্ড প্রাক্কলনের সাথে প্রায় একমত, তবে এটি গ্যালাক্সির পরিমাপ থেকে অনুমান করা মেগা/সেকেন্ড/ সেকেন্ডে 74 কিলোমিটারের চেয়ে ধীর। 

arXiv.org এ পোস্ট করা অন্য একটি কাগজের প্রথম লেখক কর্নেল বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টিভ চই বলেছেন,” আমার কোনও নির্দিষ্ট মানের জন্য বিশেষ পছন্দ ছিল না – এটি একরকম বা অন্যভাবে আকর্ষণীয় হতে চলেছিল। ” “আমরা প্ল্যানক স্যাটেলাইট টিমের অনুমানের ভিত্তিতে একটি সম্প্রসারণ হার পেয়েছি। এটি আমাদের মহাবিশ্বের প্রাচীনতম আলো পরিমাপের উপর আরও বেশি আত্মবিশ্বাস দেয়।” 

এই অ্যাক্ট গবেষণাটি জাতীয় বিজ্ঞান ফাউন্ডেশন (এনএসএফ) দ্বারা অর্থায়ন করা হয়, এবং এনএসএফ স্টনি ব্রুকের অধ্যাপক শেহগাল এবং সহকর্মীদের কাজের জন্য অর্থও প্রদান করে। 

তথ্য সুত্র: আটাকামা কসমোলজি টেলিস্কোপ গবেষকদের কাছ থেকে প্রাপ্ত গবেষণাপত্র। 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here