35.6 C
Kolkata
Wednesday, May 25, 2022
More

    দাবার নতুন চালও ‘‌আবিষ্কার’‌ করতে চেয়েছিলেন কলম্বাস!‌

    নির্মলকুমার সাহা

    (‌আজ ২০ জুলাই। আন্তর্জাতিক দাবা দিবস। এই উপলক্ষে ক্রীড়া জগতের বাইরের বিখ্যাত ‌‌‌‌কয়েকজনের শখের দাবা খেলার গল্প। এঁদের বাইরেও আরও অনেক বিশিষ্ট মানুষ দাবা খেলতেন বা খেলেন। তাঁদের দাবা খেলার গল্প আবার পরে কখনও।)‌

    ৫৪ বছর আগের আবছা কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ একটি ছবি। গাল ভরা দাড়ি, মাথায় টুপি, দাবা বোর্ডের সামনে বসে ফিদেল কাস্ত্রো (‌Fidel Castro)‌। উল্টো দিকে কোণাকুণি দাঁড়িয়ে চাল দিচ্ছেন ববি ফিশার। তখনও অবশ্য ববি ফিশার বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হননি। খেলাটা ফিশারের সঙ্গে কাস্ত্রোর নয়। কাস্ত্রো খেলছিলেন মেক্সিকোর তরুণ খেলোয়াড় ফিলিবার্তো তেরাজাসের (‌Filiberto Terrazas)‌‌‌‌ সঙ্গে। খেলা কয়েক চাল এগোতেই কাস্ত্রোকে কিছু পরামর্শ দিতে শুরু করেন তখনকার বিশ্বচ্যাম্পিয়ন টাইগ্রান পেট্রোসিয়ান। এটা দেখে তেরাজাসের পাশে দাঁড়িয়ে পড়েন ফিশার। শুরু করেনন পরামর্শ দিতে। এক সময় দেখা যায়, চালও দিতে শুরু করেছেন ফিশার। খেলাটা প্রায় হয়ে দাঁড়ায় ববি ফিশার বনাম ফিদেল কাস্ত্রো। সাদা ঘুঁটি ছিল কাস্ত্রোর। টাইগ্রান পেট্রোসিয়ানের পরামর্শে খেলাটিতে জিতেছিলেন কাস্ত্রো। এটা ১৯৬৬ সালের ঘটনা। সেবার কিউবার হাভানায় দাবা অলিম্পিয়াডের আসর বসেছিল। বিশ্বের তখনকার সেরা দাবা খেলোয়াড়রা হাজির ছিলেন ওখানে। ফিদেল কাস্ত্রো আরও অনেক তারকার সঙ্গেও ওই সময় দাবা খেলেছিলেন। টাইগ্রান পেট্রোসিয়ানের সঙ্গে একটি খেলা ড্র-‌ও করেছিলেন কাস্ত্রো। পরেও নানা সময় নানা জায়গায় কিউবার এই জননেতাকে দাবা খেলতে দেখা গিয়েছে।
    শুধু ফিদেল কাস্ত্রো নন, নানা দেশের অনেক রাষ্ট্রনায়ককেই বিভিন্ন সময়ে দাবা খেলায় মেতে উঠতে দেখা গিয়েছে। বলার অপেক্ষা রাখে না, আমেরিকার তুলনায় সাবেক সোবিয়েত ইউনিয়নে কিংবা ভেঙে যাওয়া সোবিয়েত ইউনিয়নের নানা খণ্ডে দাবা খেলার চল অনেক বেশি। কিন্তু ইতিহাস ঘাঁটলে দেখা যাবে আমেরিকার বেশ কয়েকজন প্রেসিডেন্ট দাবার ভক্ত ছিলেন। নিজেরাও দাবা খেলতেন। যেমন বিল ক্লিন্টন (‌Bill Clinton)‌ জর্জটাউন ইউনিভার্সিটির ছাত্র থাকার সময় নিয়মিত দাবা খেলতেন। দাবা খেলোয়াড় হিসেবে তখন তাঁর ভালই পরিচিতি ছিল। ১৯৬৮ সালে জর্জটাউন ইউনিভার্সিটি দাবা দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ছিলেন।
    আমেরিকার আরেক প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট জিমি কার্টারও (Jimmy Carter‌)‌ দাবা খেলতেন। হোয়াইট হাউস ছেড়ে যাওয়ার পর তাঁর ইচ্ছা ছিল দাবা-‌বিশেষজ্ঞ হবেন। কিনে ফেলেছিলেন দাবার অজস্র বই। শেষ পর্যন্ত ১৯৯৭ সালে তিনি ওই ইচ্ছা বিসর্জন দেন। তখন বলেছিলেন, ‘‌দেখলাম, দাবা-‌বিশেষজ্ঞ হওয়ার মতো প্রতিভা আমার নেই। এটা মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছে। কিন্তু এটাই বাস্তব।’‌
    আব্রাহাম লিঙ্কন (‌Abraham Lincoln)‌ তো ছিলেন পুরোপুরি দাবা পাগল। দাবা খেলতে বসলে তিনি বাকি সব ভুলে যেতেন। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট থাকাকালীনও হোয়াইট হাউসে নিয়মিত দাবা খেলতে বসতেন। একবার এক বিচারপতির সঙ্গে দাবা খেলছিলেন আব্রাহাম লিঙ্কন। নৈশভোজ তৈরি। স্ত্রী বারবার ডাকলেও লিঙ্কন সাড়া দিচ্ছিলেন না। এবার স্ত্রী পাঠালেন পুত্র ট্যাডকে। ছেলে গিয়ে উল্টে দিলেন দাবা বোর্ড। তারপর খেতে গেলেন লিঙ্কন। আমেরিকার মিউজিয়ামেও আছে তাঁর ব্যবহার করা দাবা বোর্ড।
    আব্রাহাম লিঙ্কনের অনেক আগেই আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ছিলেন জন কুইনসি অ্যাডামস (John Quincy Adams)‌‌। তিনি শুধু দাবা খেলতেন না, সংগ্রহ করে রাখতেন দামী দামী দাবা সেট। প্রেসিডেন্ট থাকাকালীন হোয়াইট হাউসেও কিনে আনতেন ওরকম অনেক দাবা সেট। একবার আইভরির একটি দাবা সেট কেনার পর বিতর্কও হয়েছিল। বিরোধীরা প্রচার চালিয়েছিলেন তিনি নিজের শখের জন্য সরকারি অর্থ অপচয় করছেন।
    আমেরিকার প্রেসিডেন্টদের দাবা খেলার কথা লিখতে গেলে সবচেয়ে বেশি এসে যায় টমাস জেফারসনের (‌Thomas Jefferson)‌ নাম। তিনি আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন ১৮০১ সালে। তাঁর প্রিয় খেলা ছিল দাবা। তবে শুরু করেছিলেন একটু বেশি বয়সেই, ঊনিশে। তাঁকে দাবা খেলা শিখিয়েছিলেন উইলিয়াম অ্যান্ড মেরি কলেজের অঙ্কের অধ্যাপক ড.‌ উইলিয়াম স্মল (Dr. William Small)‌। শেখার পর প্রতি সন্ধ্যাতেই জেফারসন বন্ধুদের সঙ্গে দাবা খেলতেন। শুধু খেলা নয়, দাবার বইও সংগ্রহ করতেন। তাঁর প্রিয় বই ছিল Analysis of the Game of Chess. যার লেখক Francois Danican Philidor.‌‌‌‌ এক সময় জেফারসনের দাবা খেলার সঙ্গী ছিলেন তাঁর চেয়ে বয়সে অনেক বড় বেঞ্জামিন ফ্রাঙ্কলিন (‌Benjamin Franklin)‌। ১৭৩২ সালে বেঞ্জামিন ফ্রাঙ্কলিন দাবা নিয়ে একটি প্রবন্ধও (‌The Morals of Chess by Benjamin Franklin) লিখেছিলেন।‌ যা অবশ্য কিছুটা সংশোধন করে অনেক বছর পর ১৭৮৬ সালের ডিসেম্বর মাসে (‌Columbian Magazine)‌ প্রকাশিত হয়েছিল। নিয়মিত ডায়েরি লিখতেন জেফারসন। তিনি লিখেছেন, ‘‌আমি এবং বেঞ্জামিন ফ্রাঙ্কলিন সমমানের খেলোয়াড় ছিলাম।’‌ ১৭৮৪-‌১৭৮৯, জেফারসন প্যারিসে ছিলেন। ওখানে গিয়ে ভর্তি হয়েছিলেন এক দাবা ক্লাবেও। জেফারসন যখন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট, তখন ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন অ্যারন বার (‌Aaron Burr)‌। তিনিও ভাল দাবা খেলতেন। প্রোটোকলের বাধা সরিয়ে প্রেসিডেন্ট বনাম ভাইস প্রেসিডেন্ট দাবা খেলাও হয়েছে তখন।
    পরে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন জেমস মাডিসন (‌James Madison)‌। দাবায় তাঁরও আগ্রহ ছিল। দাবা খেলতেন, দাবা খেলা দেখতেন। জেফারসন এবং অ্যারন বারের বিরুদ্ধেও তিনি বেশ কয়েকটি গেম খেলেছেন। প্রেসিডেন্ট জেমস মোনরোও (‌James Monroe) দাবা খেলতে ভালোবাসতেন। শোনা যায়, জেফারসনের কাছ থেকে দাবার বেশ কিছু বইও তিনি কিনেছিলেন।
    আমেরিকার আরেক প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সন (Richard Nixon) দাবা খেলতে বসলেও বেশি সময় বোর্ডের সামনে বসে থাকতে পারতেন না। দু-‌চার চালের পরই প্রতিদ্বন্দ্বীকে বলতেন, ‘‌ক্ষমা চাইছি, আর খেলব না। চললাম।’‌
    আমেরিকার আরও কয়েকজন প্রেসিডেন্টেরও দাবা খেলার অভ্যাস ছিল। যেমন রাদারফোর্ড হেয়েস (‌Rutherford B Hayes)‌, জেমস গারফিল্ড (‌James A Garfield)‌, গ্রোভার ক্লিভল্যান্ড (‌Grover Cleveland)‌, ওয়ারেন হার্ডিং (‌Warren G Harding)‌, উডরো উইলসন (‌Woodrow Wilson)‌, থিওডোর রোজভেল্ট (‌Theodore Roosevelt)‌ প্রমুখ।
    এবার সাবেক সোবিয়েত ইউনিয়নে বা রাশিয়ায় যাওয়া যাক। একদা সোবিয়েত ইউনিয়নের নানা পত্রপত্রিকায়, বিশেষত দাবা ম্যাগাজিনগুলোতে একটি‌ স্লোগান খুব জনপ্রিয় ছিল। ওই স্লোগানটি আসলে ভি আই লেনিনের (‌Vladi‌‌‌‌mir Ilyich ‌‌‌‌‌Lenin)‌ একটি উক্তি, ‌‘‌Chess is the Gymnasium of the Mind‌‌‌’‌.‌ পরে অবশ্য ওটা লেনিনের উক্তি কিনা, তা নিয়ে জোর বিতর্ক দেখা দিয়েছিল। তা যাই হোক, ভি আই লেনিন যে দাবার বড় পৃষ্ঠপোষক ছিলেন, এ নিয়ে কোনও বিতর্ক নেই। তিনি নিজেও দাবা খেলতেন। লেনিন দাবা খেলছেন, এমন ছবি তো এখনও নানা বইয়ে দেখা যায়। ইতালির ক্যাপ্রিতে গিয়েও একবার তিনি দাবা খেলতে বসে পড়েছিলেন। উল্টো দিকেও ছিলেন এক বিখ্যাত মানুষ, ম্যাক্সিম গোর্কি (‌Maxim Gorky)‌‌‌‌। এটা ১৯০৮ সালের ঘটনা। সাদা ঘুঁটি নিয়ে খেলেও লেনিন কিন্তু টেক্কা দিতে পারেননি গোর্কিকে। ২৬ চাল পর্যন্ত খেলাটি চলেছিল। জিতেছিলেন ম্যাক্সিম গোর্কি। নিজের দাবা খেলা নিয়ে লেনিনের অবশ্য বক্তব্য ছিল, ‘‌Chess is only a recreation and not an occupation.‌‌’‌
    হারকে লেনিন সহজভাবে মেনে নিলেও তা একেবারেই পারতেন না কার্ল মার্ক্স (‌Karl Marx)‌। দাবা খেলায় হারলেই তিনি রেগে যেতেন। ১৮৫০ সালের কাছাকাছি কোনও সময়। কার্ল মার্ক্স তখন লন্ডনে। ওখানে তখন ছিলেন আরও অনেক রাজনৈতিক নেতা। মার্ক্স ওখানে একদিন খুব জোরালোভাবে ঘোষণা করলেন, তিনি দাবার একটি নতুন চাল খুঁজে পেয়েছেন, যা দিয়ে সবাইকেই হারাতে পারবেন। প্রথম দিকে জিতলেও, পরে কয়েকজনের কাছে হারলেনও। সমস্যা দেখা দিল, যাঁদের কাছে হারছেন, তাঁদের আবার পরের দিন দাবা খেলার আমন্ত্রণ জানাচ্ছেন। লন্ডনে সেবার ওই দাবা খেলা বন্ধ করতে উদ্যোগ নিতে হয়েছিল কার্ল মার্ক্সের স্ত্রীকে। তিনিই দাবা খেলতে আসা অতিথিদের ফিরিয়ে দিতেন। বলতেন, ‘‌আপনারা আর এখানে দাবা খেলতে আসবেন না। হারলে পরে বাড়িতে আর থাকা যাচ্ছে না। ওঁর আচরণ অসহ্য হয়ে উঠছে।’‌
    অন্য জগতের বিখ্যাতদের দাবা খেলা নিয়ে আলোচনা করতে গেলে উঠে আসবে আরও অনেক নাম। নেপোলিয়ান (‌Napoleon Bonaparte)‌, ভলতেয়ার (‌Voltaire)‌, তলস্তয় (‌Leo Tolstoy)‌, চে গুয়েভেরা (‌Che Guevara)‌, আইজাক নিউটন (‌Isaac Newton)‌, ইয়েসার আরাফাত (‌Yasser Arafat)‌, উইনস্টন চার্চিল (‌Winston Churchill)‌, রুশো (‌Jean-Jacques Rousseau)‌, স্ট্যালিন (‌Joseph Stalin)‌, চার্লি চ্যাপলিন (Charlie Chaplin), উইলিয়াম সেক্সপিয়ার (‌William Shakespeare)‌, জর্জ বার্নাড শ (‌George Bernard Shaw), চার্লস ডিকেন্স (Charles Dickens), সলমন রুশদি (Salman Rushdie)— আরও কতো নাম।
    চার্লি চ্যাপলিন তখন থাকতেন লস এঞ্জেলস অ্যাথলেটিক ক্লাবের বিশাল এক ঘরে। সেখানে আসা-‌যাওয়া ছিল সমাজের উঁচুতলার অনেক লোকজনের। তাঁদের বিনোদনের জন্য ছিল নানা ব্যবস্থা। যার একটি দাবা। চার্লি চ্যাপলিনও‌‌ সেখানে দাবা খেলতেন। ‌‌‌‌‌চ্যাপলিনের আত্মজীবনীতেও দু’‌পাতা জুড়ে আছে তাঁর দাবা খেলার গল্প। স্যামুয়েল রেসেভস্কি (‌Samuel Reshevsky)‌‌‌‌ পোলান্ড-‌জাত এই দাবা খেলোয়াড় ৯ বছর বয়সে মা-‌বাবার সঙ্গে পাকাপাকি চলে যান অমেরিকায়। পরে গ্র‌্যান্ডমাস্টার হয়েছিলেন। কিন্তু এর চেয়েও বড় কথা রেসেভস্কির দাবা খেলার শুরুটা ছিল দারুণ। ১০‌-‌১১ বছর বয়সেই চারিদিকে রেসেভস্কিকে নিয়ে হইচই পড়ে গিয়েছিল। রেসেভস্কির ভক্তের তালিকায় ছিলেন চার্লি চ্যাপলিনও। ১৯২৩ সালে রেসেভস্কিকে আমন্ত্রণ জানিয়ে ডেকে এনেছিলেন চ্যাপলিন। খেলতে বসেছিলেন দাবা।
    চে গুয়েভেরার দাবার ‘‌গুরু’‌ ছিলেন তাঁর বাবা । ১২ বছর বয়সে বাবার কাছেই তাঁর দাবা-‌শিক্ষা শুরু। বাবার কোচিংয়ে অল্পদিনেই খুব ভালোভাবে দাবা খেলার নানারকম চাল শিখে ফেলেছিলেন গুয়েভেরা। তখন ছোটদের প্রতিযোগিতায় খেলে কিছু প্রাইজও পেয়েছেন। কিন্তু পরে অন্য জগতে চলে যাওয়ায় পেশাদার দাবা খেলোয়াড় হয়ে ওঠা হয়নি। তবে সময় পেলেই শখের দাবা খেলতে বসে পড়তেন।
    অন্য জগতের তারকাদের দাবা খেলা একেক জনের কাছে একেকরকম। পছন্দ-‌অপছন্দের নানা রকম ফের। অভিনেত্রী গেবরের (Zsa Zsa Gabor) দাবার প্রতি ভালোবাসা এতটাই গভীর ছিল যে, যেখানেই যেতেন সঙ্গে থাকত দাবা বোর্ড, ঘুঁটি। ‌‌‌৯ বার বিয়ে করেছিলেন এই অভিনেত্রী। বিয়ে আর ডিভোর্স, এটাই ছিল যেন তাঁর জীবনের নেশা। তাঁর তৃতীয় স্বামী অভিনেতা জর্জ স্যান্ডার্স‌‌‌‌‌ও (‌George Sanders) ছিলেন দাবার ভক্ত। বিয়ের পর মধুচন্দ্রিমায়ও ওঁরা সঙ্গে নিয়ে গিয়েছিলেন দাবা বোর্ড, ঘুঁটি। অনেকটা সময় দু’‌জনে কাটিয়ে দিয়েছিলেন দাবা খেলেই। স্বামী-‌স্ত্রীর সেই দাবা খেলা থামতেই চাইত না। আসলে কেউ হেরে শেষ করতে চাইতেন না। একজন হারলেই আরেকজনকে বোর্ডের সামনে থেকে উঠতে দিতেন না। দাবি, আরেক গেম খেলতে হবে। এভাবেই গড়িয়ে যেত সময়।
    পপ তারকাদের জগতেও দাবা রীতিমতো পরিচিত। বিখ্যাত আইরিশ পপ তারকা বোনো (‌পুরো নাম Paul David Hewson)‌ স্কুলে দাবায় চ্যাম্পিয়ন ছিলেন। পরে অন্য জগতে চলে গেলেও দাবার নেশা ছাড়তে পারেননি। ‌‌‌‌গত শতাব্দীর দাবার সেরা লড়াই ১৯৭২ সালে ফিশার-‌স্প্যাশকির বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের খেলা। যা সারা বিশ্বে আলোড়ন ফেলেছিল। বোনোর বয়স তখন ১২ বছর। ওই লড়াইয়ের প্রভাব পড়েছিল বোনোর শৈশবেও। দাবার প্রতি ভালোবাসার জন্ম সেখান থেকেই। বোনোর একটি লেখায় রয়েছে, ‘‌Thinking ahead, thinking around corners, guessing somebody else’s next move….these were the pleasures of chess for me….my greatest childhood pleasure. In Ballymun we had a chess club, like so many kids at the beginning of the 70s, I fell head over heels for this dizzy strategic game. I have fond memories of the Phisboro C‌‌‌lub also where myself and my friend Joseph Marks were let play with the grown ups.’‌
    ফিশার-‌স্প্যাশকি লড়াইয়ের প্রভাবে দাবা খেলা শুরু করলেও একসময় বোনোর প্রিয় তারকা হয়ে উঠেছিলেন আনাতলি কারপভ। পরে গ্যারি কাসপারভ। কয়েকবছর আগে ডাবলিনে কাসপারভের সঙ্গে দেখা হয়েছিল বোনোর। দাবা নিয়ে অনেকক্ষণ কথা হয়েছিল দু’‌জনের। ওই সাক্ষাৎকারের পর নিজের ওয়েবসাইটে কাসপারভ অবশ্য লিখেছিলেন, ‘‌It was a great pleasure to meet Bono during my visit to Dublin. I was not sure what to expect considering our different backgrounds but we had a fascinating conversation, And despite his self-deprecation, I could see from the fire in his eyes when he spoke about chess that perhaps it might not be too hard to convince him to return to the board, even if just for a charity exhibition. And I’m sure he’d last much longer than three moves!‌‌‌‌‌’‌
    আরেক পপ তারকা ম্যাডোনা (‌পুরো নাম Madonna Louise Ciccone)‌ তো দাবা খেলার জন্য পেশাদার কোচও রেখেছিলেন। তিনি ও তাঁর দ্বিতীয় স্বামী রিচি (পুরো নাম Guy Ritchie)‌‌‌‌‌ দাবার প্রশিক্ষণ নিতেন স্কটল্যান্ডের‌‌‌‌ নামী  খেলোয়াড় অ্যালান নরিসের (‌Alan J Norris) কাছে। প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে ম্যাডোনার সবসময়ই পছন্দ ছিলেন রিচি।
    এক নেশা ছাড়াতে গিয়ে আরেক নেশা ধরেছিলেন সুরকার রে চার্লস (Ray Charles Robinson)। ‌‌‌তিনি তখন হেরোইনের নেশা ছাড়ার চেষ্টা চালাচ্ছিলেন। সপ্তাহে তিন দিন যেতে হত ‌‌‌‌‌‌‌মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের (Dr. Friedrich Hacker) কাছে। সেই ডাক্তারই ধরিয়ে দিয়েছিলেন দাবার নেশা। শৈশব থেকেই রে চার্লস ছিলেন দৃষ্টিহীন। ফলে বিশেষ দাবা বোর্ড ব্যবহার করতেন। মৃত্যুর ২ বছর আগে, ২০০২ সালে তিনি আমন্ত্রণ ‌‌‌জানিয়ে খেলতে বসেছিলেন আমেরিকার গ্র‌্যান্ডমাস্টার ল্যারি ইভান্সের (‌Larry Melvyn Evans) বিরুদ্ধে। সেই লড়াইয়ে অবশ্য হেরেছিলেন।
    উইনস্টন চার্চিলের পছন্দ ছিল ব্লিৎজ চেস। তিনি খেলতে ভালোবাসতেন ইংলিশ ডিফেন্সে। অভিনেতা ম্যাকাউলে কালকিনের (‌Macaulay Carson Culkin) পছন্দ একাএকা দাবা খেলা। বোর্ডে ঘুঁটি সাজিয়ে বসে দু’‌দিকের চাল নিজে দেওয়াতেই তাঁর যত আনন্দ!‌
    অনেক বেশি বয়সে দাবা খেলা শুরু করা ক্রিস্টোফার কলম্বাস (‌Christopher Columbus) বোর্ড ছেড়ে উঠতেই চাইতেন না। নিশ্চিত পরাজয় জেনেও লড়তেন শেষ চাল পর্যন্ত। বলতেন, ‘‌চেষ্টা করে দেখতে ক্ষতি কীসের?‌ শেষ মুহূর্তেও তো নতুন কোনও চাল আবিষ্কার করে ফেলতে পারি।’‌
    ‘‌আবিষ্কার’‌ শব্দটির গুরুত্ব ক্রিস্টোফার কলম্বাসের চেয়ে আর কে বেশি বুঝবেন!‌

    Related Posts

    Comments

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    সেরা পছন্দ

    আগামীকাল ভারত বনধের ডাক ! একাধিক দাবি সংখ্যালঘু সম্প্রদায় কর্মচারী ফেডারেশনের

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : আবারও ২৫ মে ভারত বনধের ডাক। ভোটে ইভিএম-র ব্যবহার বন্ধ সহ একাধিক বিষয়ে ভারত...

    ডিজিট্যাল লেনদেনে প্রথম সারিতে ভারত , বর্ষপূর্তিতে বড় সাফল্য মোদী সরকারের

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : ২০১৪ সালে দেশের ক্ষমতায় বসেছিল মোদী সরকার। আগামী ২৬ মে ৮ বছর পূর্ণ করতে...

    জুন মাসে ১২ দিন ছুটি ব্যাংকে ! দেখুন সম্পর্ণ তালিকা

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : যদি জুন মাসে ব্যাঙ্ক সংক্রান্ত কোনও কাজের পরিকল্পনা থাকে, তবে আপনার জন্য দরকারি খবর।...

    ভারতে উৎপাদন বাড়াবে Apple ! কমবে চীন নির্ভরতা

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : চিন থেকে উৎপাদন নির্ভরতা কমাতে উদ্যোগ নিল Apple। আর ভারতে উৎপাদনে জোর দেওয়ার কথা...

    “ফুল” বদল করলেন ব্যারাকপুরের বাহুবলী নেতা অর্জুন সিং

    দ্যা ক্যালকাটা মিরর ব্যুরো : সমস্ত জল্পনার অবসান ঘটিয়ে তৃণমূলে যোগদান করলেন বারাকপুরের বিজেপি সাংসদ...